নৌকা নিয়ে ৩৪ বছর পর চেয়ারম্যান পদ হারালেন আব্দুল কাদের 

লালমনিরহাট প্রতিনিধি:
লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার আব্দুল কাদের একনা ৩৪ বছর ধরে উপজেলার মদাতী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান। এবারও চেয়ারম্যান পদে আরও ৫ বছর মেয়াদ বাড়াতে হয়েছিলেন নৌকার মাঝি। কিন্তু গত ২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচনে পরাজিত হয়ে দীর্ঘ ৩৪ বছরের চেয়ারম্যান পদের ইতি টানতে হলো আব্দুল কাদের বিএসসিকে।
গত মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) বিকেলে নবাগত চেয়ারম্যান ৩৪ বছরের চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের বাড়িতে সৌজন্য সাক্ষাৎকারে আসলে আব্দুল কাদের তরুণ নবাগত চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন বিপ্লবের মুখে মিষ্টি তুলেদেন। এই ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে পড়ে। অনেকে ফেসবুকে লিখেন,
আল্লাহ যা করেন তাহাই মঙ্গল দাদুভাই

জনাব মোঃ আব্দুল কাদের চেয়ারম্যান আপনাকে দেখলেই বুঝা যায় আপনি কতটা হৃদয়বান।
আপনার জন্য রইলো ভালবাসা
সেই সাথে

অভিনন্দন
২নং মদাতী ইউনিয়ন পরিষদের
নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বিপ্লব স্যার
আপনার জন্য রইলো দোয়া ও ভালোবাসা।
জানা গেছে, ৩৪ বছরের চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৮৮ সালে মদাতী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে হারিকেন প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে প্রথম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এরপর একটানা ৩৪ বছর দখলে রাখেন চেয়ারম্যান পদটি।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার গঠনের পর স্থানীয় বাবুর হাটে তৎকালীন জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কর্ম পরিষদ সদস্য রুহুল আমিন সুজার সাথে দেখা করেন  আব্দুল কাদের। তবে তিনি জামায়াতে যোগদান করেছিলেন কিনা তা জানা যায়নি। এর আগে জাতীয় পার্টির স্থানীয় সংসদ সদস্য প্রয়াত মজিবর রহমানের সঙ্গেও তাঁর ছিল ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ। পরবর্তী সময়ে ২০০২ সালের ১৭ এপ্রিল স্থানীয় চামটা হাট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তৎকালীন উপমন্ত্রী ও লালমনিরহাট জেলা বিএনপির সভাপতি আসাদুল হাবিব দুলুর হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বিএনপিতে যোগদান করেন আব্দুল কাদের।
বিএনপি ক্ষমতা হারানোর পর দীর্ঘদিন নিষ্কৃয় থেকে ২০১৫ সালের ১৯ আগস্ট ভোটমারী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে এবং চামটার হাটে জনতার মঞ্চে তৎকালীন প্রতিমন্ত্রী ও বর্তমান সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নূরুজ্জামান আহমেদের হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন তিনি। বাগিয়ে নেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি পদ।
নিজের জনপ্রিয়তা ও সুবিধা যেদিকে তিনিও (কাদের) সেদিকে হাল ধরে এভাবে  নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে টানা ৩৪ বছর মদাতী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদটি ধরে রাখেন আব্দুল কাদের। এর মধ্যে প্রথমবার হারিকেন ও পরে  আনারস এমনকি গত ইউপি নির্বাচন (২০১৬) তে নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে তৎকালিন মদাতী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আনিচুর রহমানকে পরাজিত করেন। আনিচুর রহমান গত ৬ মাস পুর্বে মারা গেলে এবারের তৃতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য তরুণ জাহাঙ্গীর হোসেন বিপ্লবের কাছে প্রায় ৩ হাজার ভোটের ব্যবধানে হেরে যান নৌকার মাঝি আব্দুল কাদের। পরাজয়ের গ্লানি ছিল না তার দীর্ঘ জীবনে। জীবনে প্রথমবার নৌকার মাঝি হয়ে এবারে হেরে যান তিনি।
স্থানীয়দের অনেকের দাবি, বিগত নির্বাচনের চেয়ে এই নির্বাচনে তার প্রচার প্রচারণায় প্রচুর খরচ করলেও ভোটাররা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। কেউ কেউ বলছেন, মদাতী ইউনিয়নে নৌকা বিরোধী ভোট বেশি থাকায় ব্যক্তি পছন্দের হলেও প্রতীকের কারণে পরাজিত হয়েছেন আব্দুল কাদের।
আব্দুল কাদের বলেন, ভেবেছিলাম সরকারি দলের প্রতীক উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে জনগণ আগের চেয়ে বেশি ভোট দেবেন। তাই নৌকা প্রতীক দিয়েছেন। কিন্তু বাস্তবে ঘটেছে উল্টো। নৌকা প্রতীক দেওয়া হলেও আমার পাশে দাঁড়ায়নি স্থানীয় আওয়ামী লীগ। আর নৌকা প্রতীকের কারণে অধিকাংশ সাধারণ ভোটার আমাকে ভালবাসলেও নৌকায় ভোট দেননি। তাই পরাজয় ঘটেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *