ব্রেকিং:
প্রকাশ্যে শাকিব-বুবলীর সন্তান শেহজাদ খান বীর বুড়িমারী স্থলবন্দর ৯ দিন বন্ধ থাকবে

শুক্রবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২   আশ্বিন ১৫ ১৪২৯   ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
গাইবান্ধায় ট্রাকচাপায় স্ত্রী নিহত, স্বামী আহত প্রকাশ্যে শাকিব-বুবলীর সন্তান শেহজাদ খান বীর বিশ্বকাপের প্রাইজমানি ঘোষণা, চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ১৬ কোটি টাকা দুর্গাপূজায় ভারতে যাচ্ছে ৩ হাজার মেট্রিক টন ইলিশ রংপুরের মানুষ আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে দেখে আমি খুবই আনন্দিত
১২৫

বাড়ছে চালের দাম

প্রকাশিত: ১১ আগস্ট ২০২২  

রাজধানীর আরামবাগ থেকে বাবুবাজারে চাল কিনতে আসেন রেস্তোরাঁর ম্যানেজার তুহিন। গত রোববারও তিনি এ বাজার থেকে চাল কিনেছেন। রেস্তোরাঁর জন্য এভাবে দু-একদিন পরপরই কয়েক বস্তা করে চাল কেনেন তিনি। মাত্র দুদিনের ব্যবধানে প্রতি কেজি চালের দাম তিন টাকা বেড়েছে বলেও জানান তুহিন।

 

বুধবার (১০ আগস্ট) সন্ধ্যায়  তুহিন বলেন, দুদিন আগে মিনিকেট চালের বস্তা (৫০ কেজি) কিনেছি তিন হাজার ২৫০ টাকায়। আজ সেই চালই তিন হাজার ৪০০ টাকা চাইছে। অর্থাৎ প্রতি বস্তায় দাম বেড়েছে ১৫০ টাকা।


তিনি বলেন, এই দোকান থেকেই বেশিরভাগ সময় চাল নেই। দোকানিরা বলছেন, কাল নাকি আরও বাড়বে। কী করবো কিছুই বুঝতে পারছি না। প্রতিদিন হু হু করে বাড়ছে চালের দাম।

বাবুবাজারের কয়েকজন পাইকারি ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পর থেকে প্রতি কেজি চালের দাম ৪ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। আরও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

চালের আড়ত জনপ্রিয় রাইস এজেন্সির স্বত্বাধিকারী রুবেল হোসেন বলেন, প্রতিদিন মিলগেটে চালের দাম বস্তাপ্রতি ৩০ থেকে ৪০ টাকা বাড়ছে। তিন-চারদিনের ব্যবধানে সেটা ১৫০ টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

 

তিনি বলেন, ভালো মানের ব্র্যান্ডের মিনিকেট এখন বস্তাপ্রতি তিন হাজার ৪০০ থেকে তিন হাজার ৫০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে ব্র্যান্ড বাদে ১০০ থেকে ২০০ টাকা কম মূল্যে মিলছে। বর্তমানে পাইকারিতে প্রকারভেদে প্রতি কেজি মিনিকেট বিক্রি হচ্ছে ৬৪ থেকে ৭০ টাকায়।


 

রুবেল হোসেন বলেন, রশিদ ব্র্যান্ডের চাল কয়েকদিন আগেও তিন হাজার ২২০ টাকায় বিক্রি করতাম, এখন সেটা তিন হাজার ৪৭০ টাকায় বিক্রি করছি। তারপরও অনেকের কাছে এই চাল নেই। এলাকা খুঁজে দু-একটা দোকানে পাবেন।

বাবুবাজারে পাইকারিতে প্রতি কেজি নাজিরশাইল বিক্রি হচ্ছে ৭২ থেকে ৮৬ টাকা। কয়েকদিনের ব্যবধানে প্রতি কেজিতে ৪ টাকা পর্যন্ত দাম বেড়েছে। ভালো ব্র্যান্ডের নাজিরশাইল এখন ২০ কেজির বস্তা বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৭১০ টাকায়। যা তিনদিন আগে ছিল এক হাজার ৬২০ টাকা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে সবচেয়ে কম দামের চাল গুটি স্বর্ণা। এই মোটা চালও প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪৭-৪৮ টাকায়। অর্থাৎ প্রতি বস্তা দুই হাজার ৩৫০ থেকে দুই হাজার ৪০০ টাকা।

 

দাম বাড়ার কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি বিগত বোরো মৌসুমে চালের উৎপাদন কম হওয়াকে দায়ী করছেন। আলেক চাঁন রাইস এজেন্সির স্বত্বাধিকারী আলেক হোসেন বলেন, এ বছর বোরোতে উৎপাদন অনেক কম হয়েছে। সেজন্য সরকার ভারত থেকে চাল আমদানির অনুমতি দিয়েছে। কিন্তু বাজারে ভারতের চাল এখনো আসেনি। এ পর্যন্ত যা এসেছে তা মিল মালিকদের কাছে আছে।

তিনি বলেন, অন্যদিকে জ্বালানি তেলের কারণে ট্রাকভাড়া বেড়েছে। আগে যেখানে কুষ্টিয়া থেকে ১৭ হাজার টাকায় বড় ট্রাক আসতো, সেটা এখন ২৫ হাজার লাগছে।

ব্যবসায়ীরা জানান, একটি বড় ট্রাকে ২৫০ বস্তা চাল আসে। বাড়তি ভাড়ার কারণে প্রতি কেজি চালে প্রায় ৫০ পয়সা বেশি খরচ হচ্ছে।

নীলয় রাইস এজেন্সির কর্ণধার মনসুর হোসেন বলেন, জ্বালানি তেলের কারণে যে শুধু ভাড়া বেড়েছে তা নয়। চাল প্রক্রিয়াকরণের খরচও বেড়েছে। সেজন্য মিলগেটে চালের দাম বাড়ানো হচ্ছে। সামনে দাম আরও বাড়বে।

এছাড়া বন্যার কারণে এ বছর হাওরে ধান উৎপাদন কম হয়েছে। অন্যান্য এলাকায়ও প্রকৃতিক দুর্যোগে ফলন বিঘাপ্রতি ২ থেকে ৪ মণ কমেছে। সে সংকট মোকাবিলায় ব্যবসায়ীরা চাল আমদানির উদ্যোগ নিলেও ডলারের দাম বাড়ার কারণে অনেকেই এখন পিছু হটছেন।

 

এদিকে, পাইকারি বাজারে চালের দাম বাড়ার প্রভাবে খুচরাতেও বেড়েছে। রাজধানীর কয়েকটি খুচরা বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মোটা চালের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫৪ থেকে ৫৫ টাকায়। মাঝারি মানের চাল ৫৮ থেকে ৬০ টাকা, মিনিকেট ৭০ থেকে ৭৫ এবং নাজিরশাইল চাল ৭৫ থেকে ৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এই বিভাগের আরো খবর