ব্রেকিং:
প্রকাশ্যে শাকিব-বুবলীর সন্তান শেহজাদ খান বীর বুড়িমারী স্থলবন্দর ৯ দিন বন্ধ থাকবে

শুক্রবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২   আশ্বিন ১৫ ১৪২৯   ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
গাইবান্ধায় ট্রাকচাপায় স্ত্রী নিহত, স্বামী আহত প্রকাশ্যে শাকিব-বুবলীর সন্তান শেহজাদ খান বীর বিশ্বকাপের প্রাইজমানি ঘোষণা, চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ১৬ কোটি টাকা দুর্গাপূজায় ভারতে যাচ্ছে ৩ হাজার মেট্রিক টন ইলিশ রংপুরের মানুষ আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে দেখে আমি খুবই আনন্দিত
৪৫২

ডিমলায় প্রতিবন্ধী বন্ধুর স্ত্রীকে ধর্ষণ

(জামান মৃধা নীলফামারী প্রতিনিধি):

প্রকাশিত: ৩১ জুলাই ২০২২  

বন্ধুত্বের সর্ম্পক ধরে বন্ধুকে স্প্রিট (কোমল পানি) পান করিয়ে ঘুম পাড়িয়ে বন্ধুর স্ত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

 

ঘটনাটি ঘটেছে নীলফামারী ডিমলা উপজেলা খালিশা চাপানি ইউনিয়নের বাইশ পুকুর মধ্যচর গ্রামে। মোকবার রহমানের শারীরিক প্রতিবন্ধী ছেলে মোজাফফর হোসেনের বাড়ীতে।

 

মোজাফফর হোসেন বলেন,  ডালিয়া আদর্শ পাড়া গ্রামের মৃত বাবুল হোসেনের ছেলে সাইদুল ইসলাম  হোটেল ব্যবসায়ী বন্ধুত্বের সম্পর্ক ধরে গত ২৯/৭/২২ইং তারিখ আমার বাড়ীতে আসে ও দাওয়াত খেয়ে চলে যায়। এর পরের দিনও ৩০/৭/২২ইং তারিখ পূণরায় দিনের বেলায় আমার বাড়িতে আসে এবং আমাকে সঙ্গে নিয় ডালিয়া তার হোটেলে নিয়ে যায় এবং সেখানে সে একটি স্প্রিট খায় আমাকেও একটি স্প্রিট দেয়।

আমি তা খাওয়ার শেষে  দু’জনে বাড়ী ফিরে আসি আমাদের সঙ্গে ছিলো আমার প্রতিবেশি মৃত বছির উদ্দিনের ছেলে বাবুল হোসেন। বাবুল আমাকে ঔষুধ খাইয়ে দেয়। এর পর ঘুম আসে এর পর কি হলো আর বলতে পারিনা। 

 

মোজাফফরের স্ত্রী জানান, আমাদের শয়ন কক্ষে দুটি খাট ছিলো পশ্চিম খাটে আমি ঘুমিয়ে ছিলাম। রাত অনুমানিক সাড়ে ১০ টার সময় দেখি বন্ধু সাইদুল ইসলাম আমাকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। তার সঙ্গে থাকা বাবুল হোসেন আমার স্পর্শ কাতর স্থানে হাত দিচ্ছিল। এমতাবস্থায় আমি চিৎকার চেচামেচি করি সেই সময় আমার শ্বশুর ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ধর্ষক সাইদুল ইসলামকে মোটর সাইকেলসহ আটক করি। আমার চিৎকার-চেঁচামেচিতে ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম শিমুলসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত হয়। তারা আমার বাড়ির আঙ্গিনায় বসা মাত্র ধর্ষক সাইদুল ইসলাম কে তার সহযোগী বাবুলের সহায়তায় তাকে বের করে নিয়ে পালিয়ে যায়।

 

এদিকে ৩১শে জুলাই সকালে হট লাইন ৯৯৯''য়ে ফোন দিলে ঘটনা স্থালে ডিমলা থানা পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর আকতার হোসেন উপস্থিত হন এবং আটকৃত মোটরবাইক ও অভিযোগকারীকে নিয়ে থানায় আসেন। ধর্ষনের আলামত সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে তদন্তকারী ইন্সপেক্টর বলেন, মেডিকেল রিপোর্ট আসলেই নিশ্চিত হওয়া যাবে।

এই বিভাগের আরো খবর