ব্রেকিং:
২০ ডিসেম্বর থেকে দেওয়া হবে করোনা টিকার চতুর্থ ডোজ আড়াই বছর পর চালু হলো কুড়িগ্রামের বর্ডার হাট

বুধবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২২   অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৯   ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
কুড়িগ্রামে পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু আজ ৬ ডিসেম্বর লালমনিরহাট হানাদার মুক্ত দিবস গোলরক্ষকের বীরত্বে জাপানকে টাইব্রেকারে হারিয়ে কোয়ার্টারে ক্রোয়েশি ব্রাজিলের শেষ আটে ওঠার লড়াইয়ে আজ সামনে দক্ষিণ কোরিয়া কেউ আমার লাশ পাইলে ফোন দিয়েন
২৫০

হাসপাতাল থেকে ফিরিয়ে দেয়া প্রসূতির চত্ত্বরেই সন্তান প্রসব

প্রকাশিত: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২  

রংপুরের কাউনিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ফিরিয়ে দেয়া রিতু আক্তার (২০) নামে এক প্রসূতি হাসপাতাল চত্ত্বরেই জন্ম দিয়েছেন সন্তান। শুক্রবার ( ২৩ সেপ্টেম্বর) বেলা ২টার এ ঘটনায় হৈচৈ চলছে সেখানে।

 

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলাকেই দুষছেন সবাই। কর্তৃপক্ষ বলছে, অবহেলার প্রমাণ মিললে নেয়া হবে ব্যবস্থা। বর্তমানে মা ও সন্তান ভালো আছেন। তাদের বাড়ি পীরগাছার অন্নদা নগর ইউনিয়নের চালনিরপাড় গ্রামে।

 

প্রসূতির স্বামী সাগর মিয়া জানান, আমার স্ত্রী রিতু খাতুনের প্রসব বেদনা উঠলে তাকে শুক্রবার দুপুরে নিয়ে আসা হয় কাউনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। সেখানকার চিকিৎসক ও নার্সরা আমার স্ত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর বলেন, গর্ভের সন্তানের অবস্থান উল্টো দিকে আছে। সে কারণে সেখানে হবে না। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলে তারা।

 

বাধ্য হয়ে প্রসূতিকে নিয়ে বাইরে বের হয়ে এ্যাম্বুলেন্স খুঁজতে থাকি। এরই মধ্যে প্রসব বেদনা বাড়তে থাকলে হাসপাতাল চত্ত্বরের খোলা জায়গাতেই পুত্র সন্তান প্রসব করেন আমার স্ত্রী। পরে হাসাপাতালের লোকজন এসে আমার স্ত্রী ও সন্তানকে আবারও ভেতরে নিয়ে গিয়ে মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি করায়।


সাগরের অভিযোগ, ঘটনার সময় সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সরা খোশগল্পে মেতেছিলেন। ঠিকমতো আমার স্ত্রীকে তারা দেখেননি। তারা ভালোভাবে দেখলে এটা হতো না। যদি আমার সন্তান ও স্ত্রীর কিছু হয়ে যেতো তাহলে কর্তৃপক্ষ কি এর দায়ভার নিতেন?

 

ঘটনার বিষয়টি স্বীকার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. সাহেদ সাব্বির আহমেদ বলেন, পরীক্ষার পর আমরা নিশ্চিত হই রিতা নামের ওই প্রসূতির গর্ভে সন্তানের অবস্থা বেগতিক। এছাড়াও তারা বাড়িতে সন্তান প্রসবের চেষ্টাও করেছে। আমরা পরীক্ষার পর করে প্রসূতির মঙ্গলের স্বার্থে রংপুরে নিয়ে যেতে পরামর্শ দিয়েছিলাম। এরই মধ্যে হাসপাতাল চত্ত্বরে সন্তান প্রসব হয়। জানতে পেরে তাকে আমরা সেখান থেকে নিয়ে এসে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। এখন মা ও শিশু দুজনই ভালো আছেন।

 

কাউনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মীর হোসেন জানান, ঘটনাটি কর্তব্যে অবহেলা নয়, অদক্ষতা। কর্তব্যরতদের গাফিলতি থাকলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

সুশাসনের জন্য নাগরিক সুজনের রংপুর জেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেন বলেন, কাউনিয়ার এই ঘটনা প্রমাণ করে হাসাপাতালগুলোতে কতটা নৈরাজ্য চলছে। চিকিৎসকসহ হাসপাতালের দায়িত্বরতা কতটা উদাসীন ও দায়িত্বজ্ঞানহীন। এ ঘটনায় জড়িতদের সাময়িক বরখাস্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান তিনি।

এই বিভাগের আরো খবর