ব্রেকিং:
প্রকাশ্যে শাকিব-বুবলীর সন্তান শেহজাদ খান বীর বুড়িমারী স্থলবন্দর ৯ দিন বন্ধ থাকবে

শুক্রবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২   আশ্বিন ১৫ ১৪২৯   ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
গাইবান্ধায় ট্রাকচাপায় স্ত্রী নিহত, স্বামী আহত প্রকাশ্যে শাকিব-বুবলীর সন্তান শেহজাদ খান বীর বিশ্বকাপের প্রাইজমানি ঘোষণা, চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ১৬ কোটি টাকা দুর্গাপূজায় ভারতে যাচ্ছে ৩ হাজার মেট্রিক টন ইলিশ রংপুরের মানুষ আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে দেখে আমি খুবই আনন্দিত
১৪৪০

হাতীবান্ধায় কে এই ফাতেমা বেগম ওরফে ফতে!

লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

প্রকাশিত: ১২ জুলাই ২০২২  

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ফকিরপাড়া ইউনিয়নের দালালপাড়া গ্রামের কে এই ফাতেমা বেগম ওরফে ফতে (৩৫)। একের পর এক সাংবাদিক রবিউল হাসানের বাবা মায়ের উপর হামলা চালিয়ে যাচ্ছেন এই নারী। ফাতেমা বেগম ওরফে ফতে (৩৫) পাটগ্রাম উপজেলার কবরস্থান এলাকার সিরাজুল মিয়ার মেয়ে। 

ফাতেমা বেগম ওরফে ফতে বিশ বছর আগে হাতীবান্ধা উপজেলার ফকিরপাড়া ইউনিয়নের দালালপাড়া গ্রামের ইমান আলী ছেলের শাফিউল ইসলাম এর সাথে বিয়ে হয়। 

জানা গেছে, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে উপজেলার ফকিরপাড়া ইউপির দালালপাড়া গ্রামের চলতি বছরের ১০ এপ্রিল সকালে  সাংবাদিকের মায়ের উপর ইট ছুড়ে মাড়েন এই ফাতেমা আক্তার ফতে। এ ঘটনায় সাংবাদিকের মা আহত হন। ইট ছুড়ে মারার ভিডিওটি  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। 

 

এরপর  ভুক্তভোগী পরিবার হাতীবান্ধা থানায় তার স্বামী সন্তানসহ তিনজনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় লালমনিরহাট আদালতের জামিনে এসে আবারও শুরু হয় অত্যাচার। তাদের বিরুদ্ধে জি আর মামলাটি চলমান রয়েছে। 

 

এরপর জুন মাসের প্রথম সপ্তাহের দিকে সাংবাদিক পরিবারকে হেয় করতে না পারে ফাতেমা বেগম ওরফে ফতে  অষ্টম শ্রেণি পড়ুয়া কন্যাকে দিয়ে সাংবাদিক রবিউল হাসানের নামে একটি ইভটিজিংয়ের অভিযোগে হাতীবান্ধা থানায় দায়ের করেন। 

 

অভিযোগ দায়েরের পর হাতীবান্ধা থানা পুলিশ তদন্ত এলে মিথ্যা অভিযোগ প্রমাণিত হয়। এরপর আবারও ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন ফাতেমা বেগম ওরফে ফতে।

 

এর পর ৭ জুলাই সাংবাদিকের পরিবারের বাগান বাড়িতে গরু প্রবেশ করিয়ে দিয়ে আবারো ঝগড়া বিবাদ সৃষ্টি করে ফাতেমা বেগম ওরফে ফতে। গরুর তাড়িয়ে দিতে গেলে আবারো তারা ক্ষিপ্ত হয়ে সাংবাদিকের মা জেবন নেছা  ওপর অতর্কিত ভাবে হামলা চালায় ফাতেমা বেগম ওরফে ফতে। এতে সাংবাদিকের মা আহত হয়ে হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। 

 

এ ঘটনায় ফতেমা বেগম ওরফে ফতে স্বামী  কে এক নম্বর আসামি করে তিনজনের বিরুদ্ধে আবারো হাতীবান্ধা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। 

 

অভিযুক্তরা হলেন,ফাতেমা বেগম ওরেফে ফতে তার স্বামী শাফিউল তার ছেলে ফিরোজ।

পুলিশ অভিযোগটি তদন্তে এসে সাংবাদিকের মাকে মারধরের বিষয়টির সত্যতা পান। এ ঘটনার কয়েক দিন পেরিয়ে গেলেও হাতীবান্ধা থানা পুলিশ এখনো অভিযোগটি নথিভূক্ত করছেন না।

সাংবাদিক রবিউল হাসান জানান, আমি বাড়িতে না থাকলে এই ফতে আমার বৃদ্ধ মা বাবার সাথে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাস করে আসছে। ফতে ও তার স্বামী সন্তান মিলে বাড়ির উপর বার বার হামলা করে আসছে। আদালতে এই ফতেসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে একটি সাতধারা ও একটি জিআর মামলা রয়েছে। তার পরও মামলার জের ধরে হামলা ও মিথ্যা মামলা দিয়ে আসছে এই নারী। আমারা সুষ্ঠ বিচার দাবী করছি।

 

এ বিষয়ে হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এরশাদুল আলম বলেন, এ ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি অভিযোগটি তদন্তাধীন রয়েছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

এই বিভাগের আরো খবর