ব্রেকিং:
২০ ডিসেম্বর থেকে দেওয়া হবে করোনা টিকার চতুর্থ ডোজ আড়াই বছর পর চালু হলো কুড়িগ্রামের বর্ডার হাট

বুধবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২২   অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৯   ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
কুড়িগ্রামে পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু আজ ৬ ডিসেম্বর লালমনিরহাট হানাদার মুক্ত দিবস গোলরক্ষকের বীরত্বে জাপানকে টাইব্রেকারে হারিয়ে কোয়ার্টারে ক্রোয়েশি ব্রাজিলের শেষ আটে ওঠার লড়াইয়ে আজ সামনে দক্ষিণ কোরিয়া কেউ আমার লাশ পাইলে ফোন দিয়েন
১১৬৫

হাতীবান্ধায় বিয়ের দাবিতে ভাতিজার বাড়িতে চাচির অনশন

লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

প্রকাশিত: ২৪ আগস্ট ২০২২  

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধার বড়খাতা ইউনিয়নে বিয়ের দাবিতে দুই সন্তানের জননী চাচি (৩০)ভাতিজার বাড়িতে এক দিন ধরে অনশন করছেন। এ ঘটনায় এলাকা জুড়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

বুধবার( ২৪ আগস্ট) সকালে বিষয়টি জানাজানি হলে ওই বাড়িতে চাচিকে দেখতে মানুষের ভিড় জমান। গত মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) সকাল ১০টা থেকে উপজেলার বড়খাতা ইউনিয়নের পশ্চিম সারডুবী গ্রামের জাকিরুল ইসলামের বাড়িতে অনশন করছেন ওই নারী।

 

জাকিরুল ইসলাম (৩০) উপজেলার পশ্চিম সারডুবী গ্রামের জব্বার হোসেনের ছেলে। তিনি এলাকার একজন রং মিস্ত্রির কাজে জড়িত।

 

জানা গেছে, উপজেলার বড়খাতার পশ্চিম সারডুবী গ্রামের জব্বার হোসেনের ছেলে তিন সন্তানের জনক জাকিরুল ইসলাম তার আপন চাচী রুমা বেগমের সাথে গত ৪ ধরে প্রেমে জরিয়ে পরেন। চাচি ও ভাতিজার প্রেমের খবর জানা জানি হলে, গত ১১ আগস্ট চাচা রশিদুল ইসলাম ও চাচী রুমার মধ্যে বিয়ের বিচ্ছেদ ঘটে। বিচ্ছেদের ১২ দিন পর দুই সন্তানের জননী চাচি বিয়ের দাবিতে ভাতিজা তিন সন্তানের জনক জাকিরুল ইসলামের বাড়িতে অনশন শুরু করেন। এঘটনায় ভাতিজা জাকিরুল ইসলাম বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। 

 

এ বিষয়ে চাচি রুমা বেগম  জানান, গত চার বছর ধরে আমার প্রেমের সম্পর্ক । বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বাড়িতে এবং বাহিরে কয়েকবার শারীরিক সম্পর্ক হয়। বিয়ে করবেন বলে গত মঙ্গলবার আমাকে বাড়িতে আসতে বলছে তাই আমি বাড়িতে চলে এসেছি। এখন আমাকে বিয়ে না করলে আমার আত্মহত্যা করা ছাড়া কোন উপায় নেই। 

 

তিনি আরও জানান,আমি তো তার আপন চাচি না। এখন তার চাচা কে ডিভোর্স করেছি।  তাকেই বিয়ে করবো। 

 

এ বিষয়ে ওই নারীর বাবা হাশর উদ্দিন জানান,আমার মেয়ের উপরের সবকিছুই। মেয়ে জানিয়েছেন ওই ছেলে কোরআন নিয়ে শপথ করেছেন তাকে বিয়ে করবেন।

 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ভাতিজা জাকিরুল ইসলাম এর সাথে তার মোবাইল ফোনে ০১৭৯৩-৮৭৬৯৯৫ একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

বড়খাতা  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হেনা মোস্তফা জামাল সোহেল জানান, বিষয়টি পশ্চিম সারডুবী গ্রামের ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাবলু মাধ্যমে জেনেছি। বিষয়টি নিয়ে গ্রামে কয়েকবার সালিশ বৈঠক হয়েছে। 

 

এ বিষয়ে হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহ আলম কে জানান, এ বিষয়ে কোনো পক্ষেরই থানায় অভিযোগ করেননি। 

এই বিভাগের আরো খবর