ব্রেকিং:
২০ ডিসেম্বর থেকে দেওয়া হবে করোনা টিকার চতুর্থ ডোজ আড়াই বছর পর চালু হলো কুড়িগ্রামের বর্ডার হাট

বুধবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২২   অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৯   ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
কুড়িগ্রামে পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু আজ ৬ ডিসেম্বর লালমনিরহাট হানাদার মুক্ত দিবস গোলরক্ষকের বীরত্বে জাপানকে টাইব্রেকারে হারিয়ে কোয়ার্টারে ক্রোয়েশি ব্রাজিলের শেষ আটে ওঠার লড়াইয়ে আজ সামনে দক্ষিণ কোরিয়া কেউ আমার লাশ পাইলে ফোন দিয়েন
৭৮

পায়ে হেটে বাবা-ছেলে এখন রংপুরের পথে

প্রকাশিত: ২২ নভেম্বর ২০২২  

গাইবান্ধা পৌর শহরের বাসিন্দা সাদেক আলী সরদার (৬৭) ও তার ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান (৩৭) এবার ১০১৫ কিলোমিটার হাঁটা শুরু করেছেন। ‘আলোকিত বাংলার স্বপ্নযাত্রা, আমরা করবো জয়’ স্লোগানে রোববার (২০ নভেম্বর) পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া জিরোপয়েন্ট থেকে ছেলেকে নিয়ে ৫০তম মিশন শুরু করেন সাবেক এ সেনা কর্মকর্তা।

মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলায় দুপুর ১টায় পৌঁছান তারা। সেখান থেকে পাগলাপীর হয়ে রংপুর যাবেন। রাত যাপন করবেন রংপুর সেনানিবাসে। তারা এখন পাগলাপীরের কাছে।


টেকনাফ পৌঁছানোর পর নিজেদের সক্ষমতা বুঝে বিশ্বভ্রমণের কথা জানিয়ে ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘আসলে বাবার ইচ্ছাতেই হাঁটা শুরু। ছোট বেলা থেকেই বাবা-ছেলের সম্পর্ক বন্ধু সুলভ। বাবাই আমার বেস্ট ফ্রেন্ড। এর আগে বাবাসহ ছোট বড় মিলে ৪৯টি মিশন শেষ করেছি। যার মধ্যে সর্বোচ্চ ২২৬ কিলোমিটার পথ হেঁটেছি। এবার ১০১৫ কিলোমিটারের লক্ষ্যে তেঁতুলিয়া থেকে টেকনাফ যাবো।’

 

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে বৃদ্ধাশ্রমগুলোতে বাবা-মায়ের সংখ্যা বাড়ছে। দিন দিন যৌথ পরিবারের সংখ্যা কমে একক পরিবার বাড়ছে। আমাদের এ হাঁটার মাধ্যমে বাবা ছেলের যে মহৎ সম্পর্ক তার বার্তা দিয়ে যাচ্ছি।’

সাদেক আলী সরদার বলেন, ২০০৬ সালে চাকরি থেকে অবসরে যাই। কয়েক বছর কোনো কাজ ছাড়া বসে থাকতে থাকতে শরীরে নানা রোগ বাসা বাঁধে। এরপর সিদ্ধান্ত নেই হাঁটার। সব রোধ প্রতিরোধের জন্য হাঁটার কোনো বিকল্প নাই। হাঁটতে হাঁটতে একদিন এটাকে মিশন বানিয়ে ফেলি। আমার এ মিশনে সহযোদ্ধা বড় ছেলে।’

এই বিভাগের আরো খবর