বুধবার   ১৮ মে ২০২২   জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৯   ১৬ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
জিআই সনদ পেলো বাগদা চিংড়ি পঞ্চগড়ে ট্রেনের টয়লেটে মিললো বীর মুক্তিযোদ্ধার মরদেহ রংপুরে ভারি, অন্যান্য স্থানে হালকা বৃষ্টি হতে পারে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট থেকে আয় ৩০০ কোটি ছাড়িয়েছে: বিএসসিএল উন্নয়ন প্রকল্পের সমালোচকদের একহাত নিলেন প্রধানমন্ত্রী
৩৬৭

তিন বিঘায় ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর রুদ্ধদ্বার বৈঠক

প্রকাশিত: ৬ মে ২০২২  

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার  আলোচিত তিন বিঘা করিডোরে পরিদর্শনে আসেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তিনবিঘায় দুই ঘন্টাব্যাপী বিএসএফের সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। এসময় তিন বিঘার মূল গেট বন্ধ থাকায় হাজারও বাংলাদেশি ভোগান্তিতে পড়েন। 

 

শুক্রবার (০৬ মে) সকাল ১১ টা ২০ মিনিটে ভারতীয় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তিনবিঘায় আসেন। এ সময় বাংলাদেশিদের চলাচলের এ সড়কটি দুই ঘন্টা বন্ধ করে দেয় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। 

 

গেটের দুই দিকে শত শত নারী, পুরুষ, শিশু, বৃদ্ধ ও দর্শনার্থী আটকা পড়ে। প্রখর রোদে ভোগান্তিতে পরে বাংলাদেশি এসব লোকজন।   

 

সীমান্ত সূত্র জানায় ও সরেজমিনে দেখা গেছে, ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ শুক্রবার সকাল ১১টায় বিএসএফের বিশেষ হেলিকপ্টারে করে তিনবিঘা হ্যালিপ্যাড মাঠে নামেন। নেমে কোচবিহার জেলার তিনবিঘা করিডর সড়কপথে পরিদর্শনে আসলে তাঁকে স্বাগত জানায় বিএসএফের ডিজি পঙ্কজ সিং, ভারতের উত্তরবঙ্গের আইজি অজয় কুমার সিং, কোচবিহারের জেলা শাসক পবন কাদিয়ান, পুলিশ সুপার সুমিত কুমার। এ সময় ভারতীয় ৬ ব্যাটালিয়নের বিএসএফ সদস্যরা করিডরের চারদিকে সামিয়ানা/পর্দা দিয়ে ঘিরে রাখে। 

 

এ সময় করিডরে বিএসএফের বৈঠকখানা/কনফারেন্স কক্ষে প্রায় দুই ঘন্টাব্যাপী রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন তিনি। বৈঠকে বিএসএফের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ ও বিজেপির রাজনৈতিক নের্তৃবৃন্দ অংশ গ্রহন করেন। বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তিনবিঘা করিডোর এলাকার বর্তমান পরিস্থিতি ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে খোঁজখবর নেন। করিডোর এলাকায় তিনি একটি গাছ রোপণ করেন। এ সময় তাঁর সাথে স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিক, রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী, স্থানীয় সাংসদ সুকান্ত মজুমদার উপস্থিত ছিলেন।

 

বৈঠক চলাকালীন করিডের সড়ক চলাফেরার করার দুই দিকের গেট বন্ধ করে দেয় বিএসএফ। এ সময় বাংলাদেশি কোনো গণমাধ্যম ও বিজিবিকে কাছে ঘেঁষতে দেয়নি বিএসএফ। এ সময় দহগ্রামে প্রবেশ ও বাংলাদেশের মূল ভু‚-খন্ডে যাতায়াতের জন্য হাজারও লোকজন ভোগান্তিতে পরে। 

 

দহগ্রাম ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ফরিদুল ইসলাম বলেন, ‘ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসায় হাজারও লোকজন খুব সমস্যায় পরে। প্রায় দুই ঘন্টা সাধারণ জনগণের চলাফেরা বন্ধ করে দেয় ভারতীয় কর্তৃপক্ষ এতে লোকজন দুর্ভোগে পড়েছে।’ 

 

একই ইউনিয়নের সর্দারপাড়া এলাকার বৃদ্ধ আবুল হোসেন (৭০) বলেন, ‘ভারতের মন্ত্রী আসলে কি বাংলাদেশিদের চলাফেরা করা যাবেনা। অটো ভ্যানগাড়িতে বহুক্ষণ ধরে বসে আছি।’

 

দহগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, ‘ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসায় দহগ্রাম তথা বাংলাদেশিদের চলাচলের সড়কটি বন্ধ করে দেওয়ায় হাজার হাজার লোকজন চরম ভোগান্তিতে পড়েছে। সড়ক বন্ধ রাখা হবে আমাদেরকে আগে জানালে আমরা মাইকিং করতাম। এতে মানুষের সমস্যা হতনা।’   

   

জানা গেছে, অমিত শাহ দুই দিনের সরকারি সফরে পশ্চিমবঙ্গে আসেন। গত বৃহস্পতিবার সকালে বিমানযোগে এসেছেন তিনি। এদিন তিনি কলকাতা বিমানবন্দরে নেমে বিএসএফের বিশেষ হেলিকপ্টারে উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার হিঙ্গলগঞ্জে যান। সেখানকার সীমান্তবর্তী নদী এলাকা পরিদর্শন করে বিএসএফের বোট এ্যাম্বুলেন্স ও ভাসমান ৬ টি আউট পোস্টের উদ্বোধন করেন। এরপর জলপথে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার বনগাঁও মহকুমার হরিদাসপুরে যান, সেখানে বিএসএফের একটি (মিউজিয়াম) জাদুঘরের উদ্বোধন করে বিএসএফের বিশেষ হেলিকপ্টারযোগে নদিয়া  জেলার কল্যাণীতে যান। সেখানে বিএসএফের একটি অনুষ্ঠান যোগ দেন।

 

দহগ্রাম আঙ্গরপোতা সংগ্রাম কমিটি সেক্রেটারি রেজানুর রহমান রেজা বলেন,ভারত কোন প্রকার ঘোষণা ছাড়াই  তিন বিঘা করিডোরের গেট দুই ঘণ্টা বন্ধ করে দিয়েছে। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। আমরা দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা বাসি ভারতের কাছে জিম্মি হয়ে গেছে। আজ দুই ঘণ্টা গেট বন্ধ থাকায় আমরা সেই ১৯৯১ সালের দিকে ফিরে গেছি। ভারতের এমন কর্তৃত্ব কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। 

 

দহগ্রাম ইউনিয়নের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য রুনা লায়লা বলেন,তিন বিঘা করিডর এ আমি নিজেই দুই ঘন্টা ধরে অপেক্ষা করছি নিজ বাড়িতে ফিরতে পারছিনা। ভারতীয় বিএসএফের এমন আচরণ দুঃখজনক। 

 

৫১ বিজিবি পানবাড়ি কোম্পানি কমান্ডার আজাদ হোসেন বলেন,ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তিনবিঘা করিডোরের পরিদর্শনের বিষয় বিএসএফ পত্র দিয়েছে। তাতে লেখা আছে দেড় ঘন্টা করিডর বন্ধ থাকবে।  কিন্তু ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) মুল গেট দুই ঘন্টা বন্ধ করে রেখেছে বিষয়টি আমাদের জানা ছিল না।

 

এ ব্যাপারে বর্ডারগার্ড বাংলাদেশ, রংপুর ৫১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল এএফএম আজমল হোসেন খান বলেন, ‘ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয় আসবেন এটা আমাদেরকে ভারতীয় বিএসএফ কর্তৃপক্ষ আমাদেরকে জানিয়েছে। দীর্ঘসময় বন্ধের বিষয়টি আমরা বিএসএফের নিকট জানতে চাব। আলোচনা করা হবে।’

এই বিভাগের আরো খবর