ব্রেকিং:
২০ ডিসেম্বর থেকে দেওয়া হবে করোনা টিকার চতুর্থ ডোজ আড়াই বছর পর চালু হলো কুড়িগ্রামের বর্ডার হাট

বুধবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২২   অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৯   ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
কুড়িগ্রামে পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু আজ ৬ ডিসেম্বর লালমনিরহাট হানাদার মুক্ত দিবস গোলরক্ষকের বীরত্বে জাপানকে টাইব্রেকারে হারিয়ে কোয়ার্টারে ক্রোয়েশি ব্রাজিলের শেষ আটে ওঠার লড়াইয়ে আজ সামনে দক্ষিণ কোরিয়া কেউ আমার লাশ পাইলে ফোন দিয়েন
১১৭

ঠাকুরগাঁওয়ে মাছ ধরা উৎসব, মানুষের ঢল

প্রকাশিত: ১৯ অক্টোবর ২০২২  

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার শুক নদীর বুড়ির বাঁধে মাছ ধরার উৎসব শুরু হয়েছে। উপজেলার চিলারং ও আকচা ইউনিয়নের মাঝামাঝি জায়গায় এই বাঁধটির অবস্থান। গতকাল মঙ্গলবার (১৮ অক্টোবর) বিকেলে বাঁধের গেট ছাড়ার পর সন্ধ্যা ৭টা থেকে মাছ ধরা উৎসব শুরু হয়েছে। 

 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতায় ১৯৫১-৫২ সালের দিকে শুষ্ক মৌসুমে এ অঞ্চলের কৃষি জমির সেচ সুবিধার জন্য সদর উপজেলার আকচা ও চিলারং ইউনিয়নের সীমানায় শুক নদীতে বাঁধ নির্মাণ করা হয়। বুড়ির বাঁধে আটকে থাকা পানিতে প্রতিবছর মৎস্য অধিদপ্তর বিভিন্ন জাতের মাছের পোনা ছাড়ে। সেগুলো দেখভাল করে আকচা ও চিলারং ইউনিয়ন পরিষদ। 

 


এরপর শীত মৌসুমের শুরুতে এই মাছ ধরার জন্য বুড়ির বাঁধ সবার  জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। এভাবেই বছরের পর বছর ধরে এ সময়টাই বুড়ির বাঁধ এলাকায় মাছ ধরার মিলনমেলা চলে আসছে। এ উৎসবকে ঘিরে বাঁধে মাছ ধরতে ছুটে আসে দূর-দূরান্ত থেকে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। অধিক মাছের আশায় নয়, বরং সকলে মিলে একসঙ্গে মাছ ধরার আনন্দকে ভাগাভাগি করে নিতেই আসেন সবাই।  

 

সদর উপজেলার নারগুন থেকে মাছ ধরতে আসা হুমায়ুন কবির বলেন, প্রতিবার আমি এখানে মাছ ধরতে আসি। বিভিন্ন জায়গা থেকে এখানে অনেক মানুষ আসে মাছ ধরতে। সবাই মিলে একসঙ্গে মাছ ধরতে খুব ভালো লাগে। এটা আজকের দিনে একটা মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে। 

 


বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ধনতলা গ্রাম থেকে আসা অমলেশ বলেন, গতকাল সন্ধ্যা থেকে জাল দিয়ে মাছ মারছি। খুব বেশি মাছ ধরতে পারিনি। গতবার অনেক মাছ পেয়েছিলাম। এবারে তেমন মাছ পাওয়া যাচ্ছে না। রিং জাল ব্যবহারের কারণে এবার মাছ অনেক কম। '

 

মাছ ধরতে আসা স্থানীয় স্কুলশিক্ষক আসাদুজ্জামান বলেন, আমি ভোরে মাছ ধরতে এসেছি। মূলত আনন্দ-উল্লাসের জন্য প্রতিবার আমি আসি। ভোর থেকে ৯টা পর্যন্ত মাছ ধরেছি। পুঁটি, শোল, শিংসহ প্রায় ৩ কেজি দেশি মাছ ধরেছি। 

 

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা আয়েশা আক্তার  বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবারও মাছ ধরা উৎসব শুরু হয়েছে। কেউ যাতে অভয়াশ্রমে মাছ না ধরে সে বিষয়ে আমরা তৎপর রয়েছি। বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা লোকজন স্বতস্ফূর্তভাবে মাছ ধরছেন।

এই বিভাগের আরো খবর