ব্রেকিং:
ঘন কুয়া ও শৈত্য প্রবাহে লালমনিরহাটের জনজীবন স্থবির নেই ঢাকায় আসছে মেসির আর্জেন্টিনা

বুধবার   ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩   মাঘ ২৫ ১৪২৯   ১৬ রজব ১৪৪৪

সর্বশেষ:
পাটগ্রামে বীর মুক্তিযোদ্ধা হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত আসামী পলাতক সরকারি খরচে সাত বছরে হজে গেছেন ১৯১৮ জন বিশ্ব ইজতেমায় লাখো মুসল্লির জুমার নামাজ আদায় শীত আরও বাড়তে পারে বিয়েবাড়িতে চাঁদাবাজি: তৃতীয় লিঙ্গের চারজন কারাগারে
২৮

অব্যাহত থাকতে পারে শৈত্যপ্রবাহ ও তীব্র শীত

প্রকাশিত: ৭ জানুয়ারি ২০২৩  

সহসাই শীত থেকে মুক্তি মিলছে না দেশবাসীর। দেশের ১১ জেলা ও এক বিভাগে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে, এটা অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা।


একইসঙ্গে ঘন কুয়াশার কারণে সূর্য না ওঠায় দিন ও রাতের তাপমাত্রার ব্যবধান কমে বিরাজ করছে তীব্র শীতের অনুভূতি। এ পরিস্থিতিও অব্যাহত থাকার পূর্বাভাস দিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর।


একইসঙ্গে চলতি মাসের মাঝামাঝি দেশের বিভিন্ন স্থানে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হতে পারে বলেও জানিয়েছেন আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা।

তীব্র শীতের কারণে কয়েকদিন ধরেই বিঘ্নিত হচ্ছে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। হতদরিদ্র মানুষের কষ্ট কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে শীত। ঘন কুয়াশার কারণে বিঘ্নিত হচ্ছে নৌযান চলাচল। সড়কে দুর্ঘটনায় পড়ছে গাড়ি।


শুক্রবার (৬ জানুয়ারি) ঢাকায় দুপুর থেকে রোদ থাকলেও আজকে ঘন কুয়াশায় রোদের দেখা মেলেনি। গতকাল রোদের কারণে দিনের তাপমাত্রা অনেকটা বেড়ে গিয়েছিল। আজকে আবারও ঢাকায় দিন ও রাতের তাপমাত্রার ব্যবধান কমে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে চলে গেছে। এতে ঢাকায় তীব্র শীত অনুভূত হচ্ছে। এ পরিস্থিতি প্রায় সারাদেশের।

আবহাওয়াবিদ মো. মনোয়ার হোসেন জানান, ফরিদপুর, মাদারীপুর, কিশোরগঞ্জ, দিনাজপুর, নীলফামারী, পঞ্চগড়, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, সাতক্ষীরা ও বরিশাল জেলাসহ রাজশাহী বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

শনিবার (৭ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাস তুলে ধরে তিনি বলেন, আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারাদেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে। এটি দেশের কোথাও কোথাও দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

 


এসময়ে সারাদেশে রাত এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। দিন ও রাতের তাপমাত্রা পার্থক্য কমে যাওয়ার কারণে সারাদেশে মাঝারি থেকে তীব্র শীতের অনুভূতি থাকতে পারে বলেও জানান মনোয়ার হোসেন।

শনিবার সকালে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল চুয়াডাঙ্গায়। ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

একই সঙ্গে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল সিলেটে। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১৫ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

 


ঢাকায় দিন ও রাতের তাপমাত্রার ব্যবধান মাত্র ৩ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকা বিভাগের প্রত্যেকটি স্টেশনে দিন ও রাতের তাপমাত্রার ব্যবধান ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে রয়েছে। এর কারণে কনকনে শীত বিরাজ করছে।

এই বিভাগের আরো খবর